Nirmukhosh

খড়কুটোর জীবন : হারিয়ে যাওয়া মুখগুলি । পর্ব ১৬ । লিখছেন সুপ্রিয় ঘোষ

রাস্তার পাশেই মাটির দেওয়াল আর খড়ের ছাউনির দোকান। দোকানের মুখটা গুড়ের বা তেলের টিন কেটে…

বাবার ইয়াশিকা ক্যামেরা । পর্ব ৯ । গঙ্গারধারের বাড়িটা । লিখছেন কল্লোল লাহিড়ী

গঙ্গার ধারে একটা বাড়ি ছিল। সেই বাড়িতে বাবার কাকিমা, আমাদের রাঙা থাকতো। ওটাই আমার আর…

খড়কুটোর জীবন : হারিয়ে যাওয়া মুখগুলি । পর্ব ১৫ । লিখছেন সুপ্রিয় ঘোষ

মাঝে মাঝেই দেখতাম তিনি গেরুয়া পোশাক পরে এক কাঁধে গেরুয়া ঝোলা অন্য কাঁধে বড়ো করাত…

বাবার ইয়াশিকা ক্যামেরা । পর্ব ৮ । খুঁজে পাওয়া সেই চিঠিগুলো । লিখছেন কল্লোল লাহিড়ী

ঠাম্মাকে আমি দেখিনি। যদি এটা বলি তাহলে খুব ভুল হবে। কারণ বাবার ইয়াশিকা ঠাম্মার সাথে…

খড়কুটোর জীবন : হারিয়ে যাওয়া মুখগুলি । পর্ব ১৪ । লিখছেন সুপ্রিয় ঘোষ

পিঠোপিঠি দুই ভাই হওয়ার কারণে আমি জ্যেষ্ঠ তাই মায়ের দুধের ভাগ ছেড়ে দিতে হয়েছিলো শৈশবেই।…

বাবার ইয়াশিকা ক্যামেরা । পর্ব ৭ । একটা চায়ের দোকান । লিখছেন কল্লোল লাহিড়ী

মায়ের একটা গ্রাম ছিল, আড়িবেলিয়া। মা সেখানে মাঝেমাঝেই লুকিয়ে পড়তো। দিদার একটা মিষ্টি পিঠের কৌটো…

খড়কুটোর জীবন : হারিয়ে যাওয়া মুখগুলি । পর্ব ১৩ । লিখছেন সুপ্রিয় ঘোষ

ডোবার পাশে ছোটো ছোটো অসংখ্য তাল গাছ। কোনোটা সোজা হয়ে হাত পাঁচেক উঠেছে। কোনোটা বেঁকে…

বাবার ইয়াশিকা ক্যামেরা । পর্ব ৬ । এক টুকরো দেশ । লিখছেন কল্লোল লাহিড়ী

কেউ যদি আমার কাছে জানতে চায় তোমার দেশ কোথায়? খুব স্বভাবতই উত্তর দেবো, ‘কেনো ভারতবর্ষ?’…

মেদিনীপুর লোকাল। পর্ব ১৩ । দ্য গ্রেট ইন্ডিয়ান সার্কাস । লিখছেন আদিত্য ঢালী

গত পর্বের পর… ছোটোবেলায় প্রচণ্ড গরমের পর যখন বিকেলবেলা ঝোড়ো হাওয়ার সাথে খানিক বৃষ্টি হতো…